রেকর্ড হারে বেড়ে চলা আটার দাম নিয়ন্ত্রণে বড় সিদ্ধান্ত মোদী সরকারের






আমাদের ভারত, ১৪ মে: আটার দাম লাগামহীন ভাবে বেড়েছে সাম্প্রতিক সময়ে। দেশের বেশিরভাগ মানুষের প্রতিদিন খাবারের একটা বড় অংশ জুড়ে থাকে আটা। তাই আটার দাম বাড়ায় স্বাভাবিকভাবেই কালঘাম ছুটছে মধ্যবিত্তের। রুটি পাউরুটি বিস্কুট থেকে শুরু করে ভারতীয়দের অনেক খাবারেই প্রধান উপাদান হিসেবে থাকে এই আটা। তাই আটার মূল্য বৃদ্ধি নিয়ন্ত্রণে গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ করল ভারত সরকার।

আটার দাম কমাতে উদ্যোগ নিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। শনিবার কেন্দ্রের তরফে বিজ্ঞপ্তি দিয়ে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে আপাতত গম রপ্তানি করবে না ভারত। মূল্য বৃদ্ধিতে লাগাম টানতে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে। দেশের খাদ্য সুরক্ষার কথা চিন্তা করে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে কেন্দ্র।

তবে সার্বিকভাবে যে রপ্তানি বন্ধ থাকবে তা নয়। কিছু কিছু ক্ষেত্রে রপ্তানিতে ছাড় দেওয়া হবে। যেমন অন্য কোনো দেশের তরফে যদি অনুরোধ করা হয় তাদের খাদ্য সুরক্ষার জন্য যদি সত্যিই গমের প্রয়োজন থাকে তবে সেক্ষেত্রে সরকার রপ্তানি করার কথা বিবেচনা করবে।

পেট্রোলের মূল্যবৃদ্ধির সাথে ভোজ্য তেল সহ অনেক জিনিসের দাম লাগামহীনভাবে বাড়ছে। এতে নাভিশ্বাস উঠেছে মধ্যবিত্তের। আর তাতেই নতুন সংযোজন আটা। গত ১২ বছরে প্রথমবার এক ধাক্কায় এতটা বেড়েছে আটার দাম। এপ্রিলে দাম বেড়ে হয়েছে ৩২ টাকা ৩০ পয়সা প্রতি কেজি। ২০১০-র জানুয়ারির পর থেকে এত বেশি দাম বাড়তে দেখা যায়নি কখনো।

তবে কৃষি বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, ভারতে এবার গমের উৎপাদন অন্য অন্যবারের তুলনায় অনেকটা কম। আবার রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে আটার চাহিদা বিশ্বজুড়ে বেড়েছে। সেই কারণে ভারতের বাজারেও দাম বেড়ে গিয়েছে। তাই রপ্তানি বন্ধ করে তা নিয়ন্ত্রণ করার চেষ্টা করছে ভারত সরকার, তাহলে চাহিদা কিছুটা কমতে পারে। রপ্তানি বন্ধ করার পাশাপাশি আটা উৎপাদনের ক্ষেত্রে জোর দিচ্ছে কেন্দ্র বলে জানা গেছে।






পূর্ববর্তী প্রবন্ধেঅযোধ্যা পাহাড়ে শিকার উৎসবে বন্যপ্রাণ হত্যা রুখতে প্রস্তুত বনদফতর