জিএসটির গাড়ি ব্যবহার করে পন্যবাহী গাড়ি থেকে টাকা আদায়, দুর্গাপুরে চালকসহ ধৃত ২



জয় লাহা, আমাদের ভারত, দুর্গাপুর, ১৩ মে: জিএসটির গাড়ি ব্যাবহার করে রাস্তায় পণ্যবাহী গাড়ি আটকে অবৈধভাবে টাকা আদায়। বৃহস্পতিবার রাতে দুই পন্যবাহী গাড়ির চালকের অভিযোগের ভিত্তিতে দুই বমালকে গ্রেফতার করল দুর্গাপুর কোকওভেন থানার পুলিশ। 

পুলিশ সূত্রে জানাগেছে, ধৃতদের নাম বাসুদেব পাল ও জগদীশ পাল। সম্পর্কে দু’জনে কাকা-ভাইপো। দুর্গাপুর নডিহার বাসিন্দা।

ঘটনায় জানাগেছে, বৃহস্পতিবার রাতে পাঁচামি থেকে দুটি পাথর বোঝাই গাড়ি খড়গপুর যাচ্ছিল। অভিযোগ, ওই সময় দুর্গাপুরের এসবি মোড়ে জিএসটি লেখা একটি স্করপিও গাড়ি তাদের আটক করে এবং চালককের কাছ থেকে জিএসটির অফিসার পরিচয় দিয়ে সমস্ত নথি নিয়ে নেয়। তারপর দুটি গাড়ি থেকে ৩ হাজার টাকা করে দাবি করে। ওই টাকা দিতে অস্বীকার করায় মামলা করার হুমকি দেয় বলে অভিযোগ। অভিযুক্তদের কথাবার্তায় সন্দেহ হওয়ায় এদিন রাতে স্থানীয় কোকওভেন থানায় অভিযোগ দায়ের করে ওই দুই ডাম্পারের চালক। লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে কোকওভেন থানার পুলিশ গাড়ির নম্বর খতিয়ে দেখে বৃহস্পতিবার রাতে ওই দুই অভিযুক্তকে নডিহা থেকে গ্রেফতার করে। এবং ব্যাবহার করা গাড়িটিও আটক করে পুলিশ। জানা গেছে, ওই গাড়িটির মালিক অন্ডালের বাসিন্দা। জিএসটি দফতরে ব্যবহার হয়। সেই কারণে গাড়িতে জিএসটি ও গভঃ অফ ওয়েস্টবেঙ্গল লেখা আছে। এমনকি নীলবাতিও রয়েছে। জিএসটি অফিসার গাড়ি থেকে নেমে গেলে অভিযুক্ত গাড়ির চালক ও আরও এক শাগরেদ রাস্তায় বিভিন্ন পন্যবাহী গাড়ি আটকে টাকা আদায় করতো।

জানা গেছে, এদিন বিকাল সাড়ে পাঁচটা নাগাদ জিএসটি আধিকারিক গাড়িটিকে ছেড়ে দেয়। তারপর অভিযুক্ত দু’জন গাড়িটির অপব্যাবহার শুরু করে। বৃহস্পতিবার রাতে ওই দুটি পাথর বোঝাই ডাম্পারের চালক তাদের খপ্পরে পড়ে। এখন প্রশ্ন, খোদ জনবহুল শহরে কিভাবে জিএসটির নাম ব্যবহার করে অবৈধভাবে টাকা আদায় করত? শুক্রবার ধৃতদের দুর্গাপুর মহকুমা আদালতে তোলা হয়। বিচারক ধৃতদের চার দিনের পুলিশ হেফাজতের নির্দেশ দেন। পুলিশ জানিয়েছে, ঘটনা তদন্ত শুরু হয়েছে। ঘটনায় আরও কেউ জড়িত রয়েছে কি না, তার তদন্ত চলছে।