পাঞ্জাবের মন্ত্রী করা হোক সিধুকে, সুপারিশের ফোন এসেছিল পাক প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে, বিস্ফোরক দাবি ক্যাপ্টেনের






আমাদের ভারত, ২৪ জানুয়ারি:নভজোৎ সিং সিধু পাঞ্জাবের মন্ত্রী হোক এমনটাই নাকি চেয়েছিলেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। তার জন্য ইমরান খানের তরফে তার কাছে ফোন পর্যন্ত এসেছিল। দিল্লিতে সাংবাদিক সম্মেলনে এমনি বিস্ফোরক অভিযোগ করেছেন পাঞ্জাবের লোক কংগ্রেস প্রধান তথা প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী অমরিন্দর সিং।

আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপির সঙ্গে আসন রফা নিয়ে আলোচনা করতে দিল্লিতে এসেছিলেন পাঞ্জাব লোক কংগ্রেস প্রধান ক্যাপ্টেন।সেখানে সিদ্ধান্ত হয় ৬৫ আসনের লড়াই করবে বিজেপি এবং ৩৭ আসনের লড়াই করবে অমরিন্দরের দল। আসন রফার বিষয়ে জানতে করা সাংবাদিক বৈঠক থেকে আরও বড় বোমা ফাঁটান অমরিন্দর সিং। তিনি বলেন, “সিধুকে পাঞ্জাবের মন্ত্রী দেখতে চেয়েছিলেন পাক প্রধানমন্ত্রী। এ বিষয়ে আমাকে ফোনও করা হয়। এমন একজন ফোন করেছিলেন, তিনি আমাকেও চেনেন, আবার সিধুকেও চেনেন।” যদিও সেই ফোন কে করেছিলেন তার পরিচয় জানাননি ক্যাপ্টেন। অমরিন্দর জানান” আমাকে বলা হয়েছিল সিধুকে মন্ত্রিসভায় নিন। কাজ না করলে তখন না হয় বের করে দেবেন।”

উল্লেখ্য সিধু কংগ্রেসের প্রত্যাবর্তনের পর থেকেই ক্যাপ্টেনের সঙ্গে দলের দূরত্ব তৈরি হয়। মুখ্যমন্ত্রী পদ ছাড়েন তিনি। দীর্ঘ টানাপোড়েনের পর দলও ছাড়েন। অমরিন্দর নতুন দল করেন। তিনি এবার পাঞ্জাব নির্বাচনে বিজেপির সঙ্গে জোট করে লড়াই করছেন। তিনি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী সহ বিজেপির প্রশংসায় পঞ্চমুখ হন। একই সঙ্গে পাকিস্তানের তুমুল সমালোচনা করেন। অন্যদিকে সিধুর সঙ্গে পাকিস্তানের সুসম্পর্ক সর্বজনবিদিত। ২০১৮ সালে প্রধানমন্ত্রীর পদে ইমরান খানের শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে পাকিস্তানে গিয়েছিলেন সিধু। সেই সময় পাকিস্তানের সেনাপ্রধানকে জড়িয়ে ধরেন তিনি। তা নিয়ে বিতর্ক তৈরি হয়। এরপর আবার পাক প্রধানমন্ত্রীকে বড় ভাই সম্বোধন করে বিতর্ক তুঙ্গে তুলেছিলেন সিধু। এবার আবার পাঞ্জাব নির্বাচনের আগে পাক প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সিধুর সম্পর্ক নিয়ে বিস্ফোরক দাবি করলেন ক্যাপ্টেন অমরিন্দর সিং।






পূর্ববর্তী প্রবন্ধেবিজেপি থেকে বরখাস্ত হলেন জয়প্রকাশ মজুমদার ও রীতেশ তিওয়ারি
পরবর্তী প্রবন্ধেকেন বাতিল হয়েছে নেতাজীর ট্যাবলো, আদালতে যুক্তি দিয়ে জানালো কেন্দ্র