মহালয়ার সকালেই দুঃসংবাদ, প্রয়াত রামায়ণের রাবণ, শোকপ্রকাশ রাম-লক্ষণ-সীতা


প্রয়াত হলেন হিন্দি টেলিভিশনের প্রখ্যাত অভিনেতা অরবিন্দ ত্রিবেদী (Arvind Trivedi)। যদিও আসমুদ্রহিমাচল তাকে চেনে রামানন্দ সাগরের ‘রামায়ণ’ (Ramayana) ধারাবাহিকের রাবণ (Ravana) হিসেবে। প্রায় ৫০ দশক পেরিয়ে যাওয়ার পরেও দর্শক তাকে রাবণ হিসেবেই মনে রেখেছেন। মঙ্গলবার রাতে তার মৃত্যু হয়েছে। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৮২ বছর।

৮০-৯০ এর দশকে রামায়ণের রাবণ বলতেই যার মুখ চোখের সামনে ভেসে ওঠে তিনিই অরবিন্দ ত্রিবেদী। রামানন্দ সাগরের রামায়ণের পর টেলিভিশনে বহুবার রামায়ণের রিমেক হয়েছে। তবে দর্শকদের মধ্যে থেকে যারা রামানন্দ সাগরের রামায়ণ দেখেছেন তাদের মনে যেন আমুলে গেঁথে গিয়েছে রাম, লক্ষণ, সীতা এবং রাবণের মুখ।

শেষের দিনগুলিতে অভিনেতা ভীষণ অসুস্থ ছিলেন বলেই জানা গিয়েছে। শেষ সময়ে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে এবং একাধিক অঙ্গ বিকল হয়ে যাওয়ার জেরে মঙ্গলবার রাতে তার মৃত্যু হয় বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকেরা। অরবিন্দ ত্রিবেদীর মৃত্যুতে শোকোস্তব্ধ গোটা ইন্ডাস্ট্রি। তারকা থেকে সাধারণ, সকলেই তার মৃত্যুতে শোক জ্ঞাপন করছেন।

গুজরাটের এই অভিনেতা রামায়ণ ছাড়াও একাধিক ছবিতে অভিনয় করেছেন। অভিনয়ের পাশাপাশি রাজনীতিতেও প্রবেশ করেন তিনি। ১৯৯১ সালে সবরকন্ঠ আসন থেকে লোকসভার সাংসদ হিসেবে নির্বাচিত হন তিনি। বিজেপির তরফের প্রতিনিধি হিসেবে সংসদে সাধারণ মানুষের জন্য সওয়াল করেন তিনি।

অরবিন্দ ত্রিবেদীর মৃত্যু সংবাদ পেয়ে শোকজ্ঞাপন করেছেন রামায়ণের রাম, লক্ষণ এবং সীতা। অরবিন্দ ত্রিবেদীর সহকর্মী হিসেবে সুনীল লাহরি, অরুণ গোভিল এবং দীপিকা চিকলিয়া টুইটার এবং ইনস্টাগ্রাম মারফত বর্ষীয়ান অভিনেতার প্রতি শোক জ্ঞাপন করেছেন। উল্লেখ্য, রামায়ণে রামের ভূমিকায় অরুণ গোভিল, লক্ষণের ভূমিকায় সুনীল লাহির এবং সীতার ভূমিকায় দীপিকা চিকলিয়া অভিনয় করেছিলেন।

টুইটারে সুনীল লাহরি লিখেছেন, “অত্যন্ত দুঃখের সংবাদ এই যে আমাদের সবার অত্যন্ত প্রিয় অরবিন্দ ভাই আর আমাদের মাঝে নেই। ভগবান ওনার আত্মাকে শান্তি দিন। উনার প্রয়াণে আমি আমার ফাদার ফিগার, পথপ্রদর্শক, শুভাকাঙ্ক্ষীকে হারিয়ে বাকরুদ্ধ”। অরুণ গোভিলও কাছের বন্ধুকে হারিয়ে শোক প্রকাশ করেছেন। অরবিন্দের পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন দীপিকা।